ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে গণহত্যা-জগন্নাথ হল

ভাষা আন্দোলন সহ সকল প্রকার আন্দোলন ও স্বাধীনতা যুদ্ধের সূতিকার ছিল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়। ৫২-এ ভাষা আন্দোলন, ৬৯-এর গণঅভ্যুত্থান, ৭১-এ স্বাধীনতার যুদ্ধে যেমন অংশগ্রহণ করে এই বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্ররা। তেমনি ৭১-এ গণহত্যার শিকার হয় এই বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী, শিক্ষক, কর্মচারীবৃন্দ। ৭১ সালের ২৫ মার্চ রাতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণহত্যার প্রথম শিকার হয় জগন্নাথ হল এবং ইকবাল হল (বর্তমানে সার্জেন্ট জহুরুল হক হল)। বেশ কয়েকটি […]

Read more

চুকনগরের এরশাদ আলী মোড়ল

নির্যাতিত মানুষের আলাদা কোন ধর্ম থাকে না। তাই ৭১-এ আমাদের মধ্যে কোন ভেদাভেদ ছিল না। তখন আমাদের একটাই পরিচয় ছিল; আমরা নির্যাতিত! চুকনগরের গণহত্যা সম্পর্কে আমরা হয়তো অনেকেই জানি। চুকনগরের বধ্যভূমি নিশ্চুপ সাক্ষী হয়ে আজো দাঁড়িয়ে আছে। চুকনগরে গণহত্যা নিয়ে অনলাইনে অনেক লেখা আছে তবে আমি লিখতে চাচ্ছি চুকনগরের এরশাদ আলী মোড়লকে নিয়ে। Salil Tripathi’এর লেখা The Colonel who would […]

Read more

রাজাকার শর্ষিণার পীরের স্বাধীনতা পদক প্রত্যাহার করা হোক

৭১-এর যুদ্ধের সময় পাকিস্তানী সরকার বাংলাদেশের বিরুদ্ধে যুদ্ধকে জিহাদ হিসেবে প্রচার করতে থাকে। পত্র-পত্রিকায় জিহাদের জন্যে অর্থ দানের আহবানও করা হয়। ইসলামের নিয়ম অনুসারে যুদ্ধ বন্ধীদের গনিমতের মাল হিসেবে ভোগ করা যেহেতু জায়েজ, সেহেতু তারা বাংলার নারীদের উপর ঝাঁপিয়ে পড়ে। পাকিস্তানীদের ভাষায় বাংলার নারীদের গর্ভে তারা সাচ্চা মুসলমানের বাচ্চা জন্ম দিতে আগ্রহী। একাত্তরের নয় মাস হিন্দুদের উপরও চলে অমানবিক নির্যাতন। […]

Read more

৭১-এর হত্যাযজ্ঞকে জিহাদ বলেছিল পাকিস্তান

বাংলাদেশে যখন পাকিস্তানী সৈন্যরা গণহত্যা চালাচ্ছিল ঠিক সে সময় পাকিস্তান সরকার এই যুদ্ধকে জিহাদ হিসেবে প্রচার করে অর্থ সংগ্রহ, গণহত্যা করার স্বপক্ষে যুক্তি উপস্থাপন করতে থাকে। যুদ্ধকালীন তারা জিহাদের নামে অর্থ সরবরাহ করে। ইসলামের নামে তারা জনগণ থেকে অর্থ সংগ্রহ করে। এছাড়া রাজাকার শর্ষিণার পীর হিন্দু নারীদের গনিমতের মাল উল্লেখ করে তাদের ধষর্ণ করার ফতোয়া দেয়। তাই পাকিস্তানী ও তাদের দালালরা বাংলাদেশের […]

Read more